৩৬তম বিবাহ বার্ষিকীতে উইম্বলডন দেখতে গেলেন বাঙালি দম্পতি!ভিডিয়ো পোস্ট উইম্বলডনের

উইম্বলডন দেখতে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকেই ভিড় জমান টেনিসভক্তরা। আর তিনটে গ্র্যান্ডস্লামের তুলনায় উইম্বলডনের প্রতি ক্রীড়প্রেমীদের একটা আলাদা টান সব সময়ই আছে। সচিন তেন্ডুলকর হোক বা ডেভিড বেকহ্যাম, রবি শাস্ত্রী হোক অন্য তারকা, সময় সুযোগ পেলেই একবার না একবার উইম্বডন দেখে আসেন তারকা। বিষয়টা অনেকটা হেরিটেজের মতো। একবার উইম্বলডন যাওয়া মানে স্বপ্নপূরণের মতো টেনিসপ্রেমীদের কাছেও। এই যেমন আসানসোলের বার্নপুরের বাসিন্দা অলকা এবং কমলেন্দু মিশ্র। চার হাত তাঁধের বাধা পড়েছে ৩৫ বছর আগে। জীবনে বহু প্রান্তেই গেছে ঘুরতে। তবে ৩৬তম বিবাহ বার্ষিকীটা একটু আলাদাভাবেই কাটালেন এই দম্পতি, সেই ভিডিয়ো ভাইরাল হয়ে গেছে ইতিমধ্যেই।

 

আসলে টেনিস প্রেমী এই দম্পতি নিজেদের ৩৫তম বিবাহ বার্ষিকী পালন করতে সটান চলে গেছিলেন অল ইংল্যান্ডের কোর্টের লড়াই দেখতে। উইম্বলডনের খেলা দেখতে যাওয়াই তাঁদের অ্যানিভার্সারি সেলিব্রেশনের মতো, যা শুনে খোদ উইম্বলডন তাঁদের ভিডিয়ো পোস্ট করেছে সোশাল নেটওয়ার্কিং সাইটে। সেখানেই স্ত্রী অলকার টেনিস প্রেমের কথা জানিয়েছেন কমলেন্দু মিশ্র।

 

কমলেন্দু এবং অলকার কথায়, ‘৭০ সাল থেকে টেনিস ভালোবাসি। এটা আমাদের কাছে একটা আবেগের বিষয়। আমাদের স্বপ্ন ছিল এই প্রতিযোগিতা দেখতে আসার। এখানে আসলে যেন গায়ে কাঁটা দেয়। যখন প্রথমবার সেন্টার কোর্টে জকোভিচকে দেখি, খুব খুশি হয়েছিলাম। এতদিন টিভিতে দেখেছি, সামনে থেকে দেখে খুব ভালো লেগেছে। উইম্বলডনের ঐতিহ্যের সঙ্গেই স্ট্রবেরি আর আইসক্রিম যায়, সেটাও খাচ্ছি, খুব ভালো উপভোগ করেছি। উইম্বলডনে খেলা দেখার আনন্দ একরকম। তবে সেন্টার কোর্টে বসে জকোভিচকে দেখা আর এত দর্শকের মধ্যে বসে তা উপভোগ করা, এই আনন্দটা একদম আলাদা ’

 

এই দম্পতি আরও বলেন, ‘একটা প্রবাদ আছে, ফুল বাড়িতেও ফোটানো যায়, কিন্তু বাগানের মজা আলাদাই। এখানে এসে খেলাটাকে সামনে থেকে উপভোগ করছি, উপলব্ধি করছি। যেটা ভাবতে পারিনি সেটাও হয়ে গেছে। আমরা রামনাথান, বিজয় অমৃতরাজ, লিয়েন্দার পেজ, সানিয়া মির্জাদের সমর্থক ছিলাম, যারা দেশকে গর্বিত করেছে। এই বয়সে এসেও বোপান্না যেটা করে দেখাচ্ছে, তা অসাধারণ। যেভাবে নিজের ফিটনেশ এবং এনার্জি দেখাচ্ছে কোর্টে তা অনবদ্য। আমি এখনও বোঝাতে পারব না ঠিক কতটা আনন্দ লাগছে। অনেক বড় ইভেন্ট দেখার চেষ্টা করি। কিন্তু এবার ঠিক করেছিলাম স্পেশাল দিনটা স্পেশাল ভাবেই কাটাবো উইম্বলডনে, কারণ এটা আমাদের ৩৬তম বিবাহ বার্ষিকী’।

2024-07-10T10:03:04Z dg43tfdfdgfd